1. md.roman220@gmail.com : admin : admin
  2. admin@deshernews.com : desherne :
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৮:৫৫ অপরাহ্ন

সৌদিতে অগ্নিকান্ডে ৯ জন বাংলাদেশী নিহত

লেখকের নাম
  • সময় রবিবার, ১৬ জুলাই, ২০২৩
  • ২৫৮ Time View

কামাল উদ্দিন টগর, নওগাঁ

সৌদি আরবে আল আহসা শহরের হুফুফ ইন্ডাষ্ট্রিয়াল সিটি এলাকায় সোফা কারখানায় অগ্নিকান্ডে নিহত নয় বাংলাদেশির মধ্যে দুইজন নওগাঁ রাজশাহী বাগমারা চারজন। নিহত হলেন নওগাঁ আত্রাই উপজেলার ্‌‌উদয়পুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুল বারেক সরদার, সাহাগোলা ইউনিয়নের ঝনঝনিয়া গ্রামের আইজাক প্রামানিকের ছেলে রমজান,বাগমারা বারইপাড়া গ্রামের জফির উদ্দিনের ছেলে রুরেল হোসাইন একই গ্রামের জমির উদ্দিনের ছেলে মোহম্মাদ সাজেদুল ইসলাম, শাহাদত হোসেনের ছেলে আরিফ ও বাগমারা বড় মাধাইমুরি কাতিলা গ্রামের আনিসুর রহমান সরদারের ছেলে ফিরুজ আলী সরদার। এ ছাড়াও নলডাঙাগা খাজুরা চন্দ্রপুর গ্রামের দবির উদ্দিনের ছেলে মোহম্মাদ ওবায়দুল। স্বাবলম্বী হওয়ার আশায় সৌদি আরব গিয়েছিলেন নওগাঁর দুই শ্রমিক ও রাজশাহীর বাগমারার চার শ্রমিক। কাজও পেয়েছিলেন সৌদি আরবের একটি সোফার কারখানায়।তাদের সাথে নাটোর জেলার নলডাঙ্গার এক শ্রমিক কাজ করতেন। ঘটনাস্থল থেকে জীবিত উদ্ধারকৃত বাংলাদেশী কর্মী বিপ্লব হোসেন ও মোঃ জুয়েল হোসেন দ্রুতবাস প্রতিনিধিকে জানান, এক ভারতীয় নাগরিকের পরিচালনাধীন সোফা কারখানাটিতে চৌদ্দ জন বাংলাদেশি কর্মী কাজ করতেন। শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে খাওয়া-দাওয়া করে কারখানার উপরের আবাসনে কর্মীরা ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ নিচ থেকে আগুন আগুন চিৎকার শুনে তারা দুজন দ্রুত সিঁড়ি দিয়ে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেন। চারদিকে কালো ধোঁয়ায় অন্ধকারে প্রবেশপথ আচ্ছন্ন হয়ে যায়। তারা অনুমানের উপর নির্ভর করে সুস্থ অবস্থায় বেরিয়ে আতে পেরেছেন। কিন্তু অন্যান্ন সহকর্মীরা কালো ধোঁয়ায় নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে মারা যান। তিন কর্মী ঘটনার সময় কারখানার বাইরে থাকায় আক্রান্ত হননি। সৌদি আরবের সোফার কারখানায় অগ্নিকান্ডে নওগাঁ,বাগমারা ও নাটোরের শ্রমিকদের মৃত্যুর খবর তাদের বাড়িতে পৌঁছার পর নিহতদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ‌‌উদয়পুর গ্রামের আব্দুল বারেক সরদারের বৃদ্ধা মা জাহেদা বেওয়া, স্ত্রী রোজিনা, দুই মেয়ে ববি খাতুর ছোট মেয়ে কারিমা বাবাকে হারিয়ে পাগলের মতো বিলাপ বলছিল, তার বাবার এমৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না।স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য কামরুজ্জামান শিপন বলেন, আব্দুল বারেক সরদার খুব ভদ্র ছিল।এঘটনার খবর শুনে উপজেলা প্রশাসন নিহতপরিবারের খোঁজ খবর নিতে নিহতের বাড়ি যান এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।এদিকে খবর পেয়ে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বাগমার উপজেলা প্রশাসনের পক্ষথেকে সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও প্রকল্পবাস্তবায়ন অফিসার(পিআইও)রাজিব আল রানা নিহত শ্রমিকদের বাড়িতে যান তাদের খোঁজ খবর নেয়া সহ সব ধরনের সহয়োগিতার দেওয়ার আশ্বাস দেন। রোববার দুপুরে সরজমিনে নিহতদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সেখানে চলছে স্বজন ও প্রতিবেশিদের শোকের মাতম।এদিকে আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকতেখারুল ইসলাম বলেন, সৌদিতে অগ্নিকান্ডে আমাদের উপজেলার দুইজন শ্রমিক মারা যাওয়ার তথ্য পেয়েছি। তাদের মরদেহ দেশে আনার বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। নিহত স্বজজনদের দাবি দ্রুত নিহতদের মরদেহ সৌদি থেকে বাংলাদেশে নিয়ে এসে নিহত পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হোক #

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর
© ২০২২ | সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | deshernews.com
Theme Customized BY LatestNews